সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৯:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

দিনাজপুরে কৃষকের ধান বাড়িতে পৌছে দিতে হারভেষ্টারের সহযোগী যন্ত্র আবিস্কার করলেন আনোয়ার হোসেন নামের এক কৃষি বিজ্ঞানী

সংবাদ দাতা:
  • সময় : শনিবার, ২৯ মে, ২০২১
  • ৫৮৫ দেখা হয়েছে

আজিজুল হক সরকার, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি, বগুড়া নিউজলাইভ ডটকম : দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর পল্লী চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন নিত্যনতুন কৃষি যন্ত্রপাতির উদ্ভাবক। এবার উদ্ভাবন করেছেন ক্ষেতের ধান ক্ষেতেই কাটাই-মাড়াইসহ বস্তাজাত করণের জন্য হারভেস্টার মেশিনের সহযোগী যন্ত্র।
এতে করে হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটাই-মাড়াইসহ বস্তাজাত করণের কাজ হলেও পরিবহণের ঝুট-ঝামেলা থেকেই যেতো। এবার সেই ঝুট-ঝামেলা মুক্ত করতে আনোয়ার হোসেন হারভেস্টার মেশিনের সহযোগী যন্ত্র উদ্ভাবন করে এলাকায় সাড়া ফেলে দিয়েছেন।


উপজেলার ২নং আলাদিপুর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর গ্রামের আদর্শ কৃষক ও পল্লী চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন এলাকায় কৃষকদের কাছে কৃষি বিজ্ঞানী নামেই পরিচিত। তিনি দীর্ঘদিন থেকে ধান কাটা-মাড়াই, বস্তাজাত করণসহ পরিবহনে কৃষকের ব্যয় কমাতে গবেষণা অব্যাহত রেখে চলেছেন। এ নিয়ে তিনি রাষ্ট্রপতি পুরস্কারও অর্জন করে নিয়েছেন ইতঃপূর্বে। কৃষিতে তার গবেষণা কাজে লাগাতে ইতোমধ্যে তিনি নিজ ব্যয়ে চীন ও ভারত সফর করেছেন কৃষিতে সাফল্য দেখতে। তিনি নিজের অর্থ ব্যয়ে ৫ টি হারভেস্টার মেশিন দেশীয় প্রযুক্তিতে স্থানীয়ভাবে নির্মাণ করেন এবং যেগুলো দিনাজপুর, রংপুর, জয়পুরহাট, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার বিভিন্ন উপজেলার কৃষকদের ক্ষেতের ধান ক্ষেতেই কাটাই-মাড়াই ও বস্তাজাত করণের কাজ করছে সফলতার সাথে। কিন্তু হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ক্ষেতের ধান ক্ষেতেই কাটাই-মাড়াই ও বস্তাজাত করণের কাজ করা সম্ভব হলেও ক্ষেত থেকে ধান কৃষকের গোলায় পৌঁছাতে ব্যয় হতো প্রতি একরে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা। কৃষকের এই অর্থ ব্যয় কমিয়ে আনতে শুরু হয় আনোয়ার হোসেনের গবেষণা। শেষতক সাফলতা আসে হারভেস্টার মেশিনের সহযোগী যন্ত্র উদ্ভাবনের মধ্য দিয়ে। যে যন্ত্রটি ক্ষেত থেকেই ধানের বস্তা কৃষকের গোলায় পৌঁছে দিচ্ছে অবস্থান ভেদে মাত্র ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা ব্যয়ে।
শনিবার সকালে সরেজমিনে উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, আনোয়ার হোসেনের উদ্ভাবিত হারভেস্টার মেশিনের পেছনে লেগে আছে আরেকটি সহযোগী যন্ত্র। হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ক্ষেতের ধান ক্ষেতেই কাটাই-মাড়াই ও বস্তাজাত করণের কাজ শেষে সহযোগী যন্ত্রটি বস্তাজাতকৃত ধান সরাসরি ক্ষেত থেকে কৃষকের গোলায় পৌঁছে দিচ্ছে। এতে করে কৃষকের অর্থ ব্যয় ও সময় দুই-ই কম লাগছে।
ওই গ্রামের কৃষক ইমরান হোসেন বলেন, এ বছর তিনি সাত একর জমিতে ইরিবোরো ধান চাষ করেছেন। ফলনও ভালো হয়েছে। হারবেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটাই-মাড়াই ও বস্তাজাতকরণ করা গেলেও ক্ষেত থেকে বস্তাজাত ধান বাড়ি পর্যন্ত পরিবহণ করা কষ্টসাধ্য ছিল। কিন্তু আনোয়ার হোসেনের হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটাই-মাড়াই ও বস্তাজাত করণের শেষে তারই উদ্ভাবিত হারভেস্টারের সহযোগী যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষেতের ধান অল্প ব্যয়ে বাড়িতে পৌঁছে গেছে।
একই গ্রামের কৃষক গোলাম মোস্তফা লিখন বলেন, সরকারের ভুর্তকির দুইটি হারভেস্টার মেশিন নিয়েছেন তিনি। তবে হারভেস্টারের রক্ষণাবেক্ষণসহ জ্বালানী খরচ খুব বেশি। এতে কৃষকের ধান কাটতে গেলে কৃষকের খরচ বেশি পড়ায় কৃষকরা বিমুখ হচ্ছেন। তবে আনোয়ার হোসেনের উদ্ভাবিত হারভেস্টার মেশিন ও এর সহযোগী মেশিনের রক্ষণাবেক্ষণসহ জ্বালানী খরচ কম হওয়ায় কৃষকরাও এর সুফল পাচ্ছেন।
হারভেস্টার মেশিনের সহযোগী যন্ত্র উদ্ভাবক পল্লী চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন বলেন, হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটাই মাড়াই ও বস্তাজাত করণের পর সর্বোচ্চ ২৫ মণ ধাণ মেশিনের ওপর রাখা যায়। আবার ওই ধান কৃষকের বাড়ী পর্যন্ত পৌঁছে দিতে গেলে জ্বালানী খরচ অনেক বেশি পড়ে এবং সময়ও বেশি লাগে। এ জন্য হারভেস্টারের সহযোগী যন্ত্রটি খুব অল্প খরচেই ক্ষেত থেকে ধানের বস্তা কৃষকের গোলায় পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে। সরকারের সহযোগিতা পেলে এই সহযোগী যন্ত্রটি কৃষকের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুম্মান আক্তার বলেন, আনোয়ার হোসেনের উদ্ভাবিত যন্ত্রটি কৃষক বান্ধব। এটি কৃষকদের সময় ও অর্থ দুই-ই কমাবে। এতে কৃষকরা উপকৃত হবেন। তবে এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, আনোয়ার হোসেনের উদ্ভাবিত যন্ত্রটি বিশাল ধান ক্ষেতের মধ্য থেকে কাটাই ও মাড়াই ধান বহন করে কৃষকের বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেওয়ার যে কার্যক্রম তা অবশ্যই কৃষি বান্ধব একটি যন্ত্র। এতে কৃষকদের সময়, অর্থ ও শ্রম সবগুলোই কমে আসবে এবং কৃষকরা উপকৃত হবেন। এ বিষয়ে সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে, যাতে করে বিষয়টি সরকারের নজরে আসে।

Facebook Comments

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
১,৫৭৬,০১১
সুস্থ
১,৫৪০,৫৯৭
মৃত্যু
২৭,৯৮০
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২২৭
সুস্থ
২৮০
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট

পুরাতন সংবাদ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

নামাজের সময় সূচি

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:০৯ পূর্বাহ্ণ
  • ১১:৫৩ পূর্বাহ্ণ
  • ৬:০০ পূর্বাহ্ণ
  • ৬:০০ পূর্বাহ্ণ
  • ৬:০০ পূর্বাহ্ণ
  • ৬:২৪ পূর্বাহ্ণ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত বগুড়া নিউজলাইভ ২০২০
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102